ল্যাপটপের আয়ু বাড়াবেন যেভাবে

বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি

ল্যাপটপ কিনতে গেলে আমাদেরকে ভালো পরিমাণ টাকাই গুণতে হয়। হবে না বা কেন, ল্যাপটপ ব্যবহারে সুবিধা অনেক। যেমন: আপনি যেখানেই যাবেন সাথে করে এটা নিয়ে যেতে পারবেন, আবার বিদ্যুৎ না থাকলেও ব্যবহার করতে পারবেন। এতো দাম দিয়ে একটা জিনিস কিনলেন কিন্তু আপনার বিবেচনাহীন ব্যবহারের ফলে সেটা কিছুদিন পর আর কাজে আসলো না, তাহলে কেমন লাগবে বলেন তো? ল্যাপটপ ব্যবহারে কয়েকটি ব্যাপারে সতর্ক থাকলে, যন্ত্রখানা অনেকদিন  আপনার সঙ্গী হিসেবে কাটাতে পারবে।

কোলে রেখে চালাবেন না:

ল্যাপটপ কথার মানে ‘কোলের উপর’ রাখা যায় এমন যন্ত্র । কিন্তু ল্যাপটপ বেশিক্ষণ কোলের উপর রাখলে ল্যাপটপের ক্ষতি হয়। ল্যাপটপ ব্যবহারের ফলে ল্যাপটপের মস্তিষ্ক নামে পরিচিত প্রসেসর গরম হয়ে উঠে এইজন্য গরম বাতাস বের করার জন্য  ল্যাপটপের তলদেশে একটা জায়গা থাকে। ল্যাপটপ বেশিক্ষণ কোলের উপর রাখলে বা কম্বলের উপর রাখলে এর তলদেশ দিয়ে  বাতাস চলাচল বাঁধাপ্রাপ্ত হয় এবং এর জীবনীশক্তি কমে যেতে থাকে।

ল্যাপটপ নিয়মিত বন্ধ করবেন:

অনেক সময় দেখা যায়, রাতে ল্যাপটপে কাজ করতে করতে ঘুম এসে গেলে ল্যাপটপ বন্ধ না করে ল্যাপটপের ঢাকনা বন্ধ করে দেই যাতে পরের দিন সকালে ল্যাপটপটি চালু করতে সময় নষ্ট না হয়। এভাবে করতে করতে দেখা যায় অনেকদিন ল্যাপটপটি বন্ধই করা হচ্ছে না। কিন্তু এটা করা উচিত না, এতে ল্যাপটপের কর্মদক্ষতা কমে যেতে থাকে। তাই সপ্তাহে একবার হলেও ল্যাপটপ বন্ধ করে আবার চালু করতে হবে।

সার্জ প্রটেক্টর ব্যবহার করুন:

বৃষ্টির দিনে বজ্রপাতের সময় সকল প্রকার ইলেকট্রনিক জিনিসপত্রের তারকে সুইস থেকে আলাদা করে ফেলতে নির্দেশনা দেয়া হয়। কারণ বজ্রপাতের ফলে উৎপন্ন বৈদ্যুতিক সার্জ ইলেকট্রনিক জিনিসপত্রের ক্ষতি করে ফেলতে পারে। কিন্তু বজ্রপাতের সময় যে আপনি বাসায়ই থাকবেন, এরকম নিশ্চয়তা নাই সুতরাং স্থায়ী সমাধানের জন্য সার্জ প্রটেক্টর ব্যবহার করুন।

ঢাকনা ধরে ল্যাপটপ খুলবেন না:

ল্যাপটপ খোলার ক্ষেত্রে কখনই উপরের অংশ ধরে খুলবেন না। উপরের ঢাকনা ধরে খুললে আপনার ল্যাপটপের স্ক্রিনটি ক্ষতিগ্রস্থ হবার সম্ভাবনা থাকে। ল্যাপটপের স্ক্রিনটি খুবই সংবেদনশীল হওয়ায় ল্যাপটপ খোলার সময় নিচের অংশের উপর চাপ দিয়ে খুললে ল্যাপটপের ক্ষতি হবার সম্ভাবনা কম থাকে।

উপর থেকে ল্যাপটপ ফেলবেন না:

ল্যাপটপ সবসময় ব্যাগে ভরে বহন করার ক্ষেত্রে সচেষ্ট থাকবেন। ব্যাগে রাখার সময় দেখবেন ল্যাপটপটি যাতে ব্যাগের ভেতরে শক্তভাবে আটকানো থাকে বা ব্যাগের নরম অংশ দ্বারা আবৃত থাকে। এতে করে আপনি ব্যাগটি উপর থেকে মেঝেতে বা টেবিলে রাখার ক্ষেত্রে সচেতন হতে ভুলে গেলেও আপনার ল্যাপটপের কোনো ক্ষতি হবে না। তবে সবসময় খেয়াল রাখবেন যাতে ল্যাপটপটি আলতোভাবে রাখা হয়, এতে করে আপনার ল্যাপটপটি সুরক্ষিত থাকবে।

পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখুন:

আপনার ল্যাপটপটি সবসময় পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখতে চেষ্টা করবেন। ল্যাপটপের ভেতরে অনেক সুক্ষ্ম যন্ত্রপাতি থাকে যার উপরে ধুলাবালি জমলে আপনার ল্যাপটপটি নষ্ট হয়ে যেতে পারে। যদি ল্যাপটপের ভেতরে বেশি ধুলাবালি জমে যায়, তাহলে দেরি না করে নিকটস্থ ল্যাপটপ মেরামতের দোকানে বাতাস দিয়ে ধুলাবালি পরিষ্কার করে নিয়ে আসতে পারেন।

 

আসলে, আমরা ল্যাপটপের বাহ্যিক সুরক্ষা নিয়ে কথা বললাম। অভ্যন্তরীন সুরক্ষা অর্থাৎ সফটওয়ার সম্পর্কিত সুরক্ষার জন্য অ্যান্টিভাইরাস ব্যবহার করা, অনিরাপদ লিংকগুলোতে প্রবেশ না করা, প্রয়োজনের অতিরিক্ত প্রোগাম একসাথে না চালানো, একসাথে অনেক ট্যাব না খোলার মাধ্যমে আমাদের ল্যাপটপকে নিরাপদ রাখতে পারি।